হবিগঞ্জে গৃহিণী আফিলা গাভীর খামারে স্বাবলম্বী

হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার দক্ষিণ হাতুন্ডা গ্রামের তার বসবাস। অভাবের সংসারে চার সন্তান আর স্বামী নিয়ে খুব কষ্টে আফিলার দিন চলতো। কোনো সময় খেয়ে আবার কখনও না খেয়ে থাকতে হতো তাদের। এমতাবস্থায় একটি বে-সরকারী সংস্থার পরামর্শে ঋণ নিয়ে গাভীর খামার গড়ে তোলেন। আর এতেই সাফলতার দেখা পান গৃহিণী আফিলা।

জানা যায়, আফিলা ঋণ নিয়ে একটা গাভী কেনেন। এরপর স্বামী আর সে মিলে সেই গাভী পরম যত্নে পালন করতে থাকেন। এরপর আর আফিলাকে পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। সেই এক গাভী থেকে আফিলার গোয়ালে এখন সাতটি গাভী। রয়েছে একটি বাছুরও। সেই গাভীগুলোর দুধ বিক্রি করে আফিয়া এখন সফল ডেইরি খামারি।

আফিলা বলেন, ২০১২ সালে ১০ হাজার টাকার ঋণ নিয়ে একটি গাভী কিনেছিলাম। সেই থেকে সফলতা আসতে শুরু করে। বর্তমানে সাতটি গরু থেকে প্রতিদিন প্রায় ৬০ লিটার দুধ বিক্রি হয়। প্রতি লিটার দুধ ৫৫ টাকায় মিষ্টির দোকানিরা ক্রয় করে। গরুর খাদ্য হিসেবে চাষ করা নেপিয়ার জাতের ঘাস, খড়, ভুসি। এসব খেয়ে গাভীগুলো মোটাতাজা হয়ে দুধ দেয়।

আফিলার স্বামী বাছির মিয়া জানান, এই গাভীর খামার গড়ে উঠার পিছনে স্ত্রী আফিলা খাতুনের বিরাট অবদান। বর্তমানে খামারের আয়ে পরিবার নিয়ে বেঁচে আছি। ছেলে ও মেয়ের লেখাপড়া করাচ্ছি। আমদের কুঁড়ে ঘরের পরিবর্তে পাকা ঘর করতে পেরেছি। সংসারে তেমন অভাবও নেই।

জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার প্রকাশ রঞ্জন বিশ্বাস বলেন, এ জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় বাড়িতেই গরু পালন করা হয়। আফিলা খাতুনের সাফল্যের কথা জেনে অত্যন্ত ভাল লেগেছে। তিনি কোন পরামর্শ চাইলে আমরা তাকে সহযোগিতা করবো।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...