সরকার মাঠে থাকবে কৃষকদের ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে: খাদ্যমন্ত্রী

কৃষকের ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে সব সময় মাঠে থাকবে সরকার । সরকার যদি বাজারে থাকে তাহলে মিল মালিক, আড়তদার ও ফরিয়া ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে কম দামে ধান কিনতে পারবে না।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় নিয়ামতপুর জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত উপজেলার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে সার, বীজ ও কৃষি প্রনোদোনা বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন খাদ্যমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি।

মন্ত্রী আরও বলেন, কেউ যদি বাজারে কম দামে ধান কিনতে চায় তাহলে কৃষক সরাসরি সরকারকে ধান দিয়ে ন্যায্য মূল্য পাবে। এই সরকার কৃষকের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তাই সরকারি দামের চেয়ে কৃষক বাইরে ধান বিক্রি করে যদি লাভবান হয় তাহলে সরকারও খুশি থাকবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়া মারীয়া পেরেরার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ আহম্মেদ, ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসাইন, নাদিরা বেগম, এ সময় সহকারী কমিশনার (ভূমী) নিলুফা সরকার, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আমীর আব্দুল্লাহ মোঃ ওয়াহেদুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, সকল ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, বদিউজ্জামান বদি, ওবাইদুল হক, বজলুর রহমান নঈম, আব্দুর রাজ্জাক, সৈয়দ মুজিব গ্যান্দা, আজাহারুল ইসলাম বুল, ভাবিচা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উৎপল কান্ত সরকার, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান বিপ্লব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি চলতি রবি মৌসুমে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৪ হাজার ৫শ৪০ জন কৃষকের মাঝে এ প্রণোদনার সার-বীজ বিতরণ করা করেন।

এর পর প্রধান অতিথি খাদ্যমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি করোনার দ্বিতীয় ধাপ নিয়ে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

তিনি বলেন, মাক্স নাই সেবা নাই। করোনা থেকে মুক্তির কোন ভ্যাকসিন এখনও আবিস্কার হয়নি। এই মহুর্তে আমাদের সকলকে সচেতন এবং মাক্স ব্যাবহারের প্রতি বেশী বেশী গুরুত্ব দিতে হবে। এ বিষয়ে উপজেলার সকল দপ্তর প্রধান, সকল ইউপি চেয়ারম্যান, আওয়ামীলীগসহ সকল অঙ্গ সংগঠনের সকলকে এগিয়ে আসতে আহবান করেন এবং সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...