কুষ্টিয়ায় পটল চাষে জাহাঙ্গীর আলমের অভাবনীয় সাফল্য

কুষ্টিয়ায় পটল চাষে জাহাঙ্গীর আলমের অভাবনীয় সাফল্য এসেছে। জাহাঙ্গীর আলম কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার নওপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। চলতি মৌসুমে পটল চাষ করে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন তিনি।

জানা যায়, কয়েক বছর আগেও কৃষি কাজ করে সংসার চালাতেন তিনি। তবুও তাদের সংসারে অভাব অনটন লেগেই থাকতো। উপজেলা কৃষি অফিসের মাধ্যমে পটল চাষ বিষয়ক পরামর্শ এবং পটল চাষের উপর প্রশিক্ষণ নিয়ে এখন তিনি ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। নিজের এক বিঘা জমিতে পটল চাষ করে অভাবের সংসারে এনেছে স্বচ্ছলতা। কৃষক জাহাঙ্গীর হোসেন তার ভাতিজা তিতুমীর ও রাজিবুলকে সহযোগী হিসেবে সবসময়ই তার পাশে রাখেন।

সরেজমিনে মাঠে গিয়ে দেখা যায়, জাহাঙ্গীর তার দুই ভাতিজাকে সঙ্গে নিয়ে পটল তোলায় ব্যস্ত। আরও একজন শ্রমিক পটল ক্ষেত পরিচর্যা করছেন। পটল চাষী জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, তার এক বিঘা জমিতে পটল চাষে শ্রেণিভেদে ২৫-৩০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। উৎপাদিত পটল বিক্রি করে এ পর্যন্ত ৭০ হাজার টাকা বিক্রি করেছে। সপ্তাহে দুইদিন প্রায় ৪ মণ পটল তোলা হয় ক্ষেত থেকে। পাইকারি ব্যবসায়ীরা মাঠ থেকেই পটল নিয়ে যায়।

কৃষি কর্মকর্তা সাবিহা সুলতানা বলেন, এবার মিরপুর উপজেলায় ২৫ হেক্টর জমিতে পটলের চাষাবাদ করা হয়েছে। আমরা কৃষকদের পটল চাষের ব্যাপারে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। কৃষক জাহাঙ্গীর বারি পটল-১ চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। আশা করছি অন্য কৃষকরা তার দেখে আগ্রহী হবেন।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...