কমছেনা চালের দাম, আমদানিতে ধীরগতি

ভারত থেকে চাল আমদানি শুরু হওয়ার প্রথম কয়েকদিন সবরকম চালের দাম কমলেও আমদানির ধীর গতিতে আবারও বেড়েছে চালের দাম। চলতি সপ্তাহে বেড়েছে কেজিতে দুই-তিন টাকা। মাঝারি ও সরু চালের দামও প্রত্যাশিত মাত্রায় না কমে, দম ধরে আছে। চাল ও বাজারভেদে দু-এক টাকা কমলেও তাতে সন্তুষ্ট নন ক্রেতারা।

খাদ্য মন্ত্রণালয় বলছে, সরকারি পর্যায়ে বা জিটুজি ভিত্তিতে ভারত থেকে স্বর্ণা, গুটিসহ কয়েক জাতের মোটা চাল আমদানিতে প্রতি মেট্রিক টনের দাম পড়ছে ৪০৭ ডলার অর্থাৎ ৩৪.৫১ টাকা কেজি। আর আতপ প্রতি টনের খরচ পড়েছে ৪১৭ ডলার, কেজিতে ৩৫.১৬ টাকা। সে হিসাবে খুচরা বাজারে আসতে আসতে দাম বেড়ে যাচ্ছে কেজিতে ১০ টাকার বেশি।

খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, আমদানি করা এসব চাল পাইকারি দরে কেনাতেই কেজিতে ৪৩ থেকে ৪৫ টাকা পড়ছে তাঁদের। খুচরা বাজারে এসব চাল বিক্রি হচ্ছে কেজি ৪৫ থেকে ৪৭ টাকা।

আমদানি ও সরবরাহের ধীরগতির কারণে দেশীয় চালের বাজারে যে প্রভাব পড়ার কথা, সেটা না পড়ে বরং উল্টোটা ঘটছে। বিক্রেতারা বলছেন, আমদানির চাল দ্রুত ও পর্যাপ্ত পরিমাণ বাজারে এলে এবং দাম কম হলে চালের বাজার নিম্নমুখী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তা না হলে দেশীয় চালের দামও আবার বেড়ে যাবে।

জানা গেছে, গত ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত মন্ত্রণালয় থেকে দুই লাখ ৬০ হাজার টন চাল কেনার দরপত্র দেওয়া হয়েছে। আর সরকারি পর্যায়ে ভারত থেকে আসবে দেড় লাখ টন চাল। অর্থাৎ সরকারিভাবে মোট চার লাখ ১০ হাজার টন চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জিটুজি পদ্ধতিতে ভারত থেকে চাল চলতি মাসেই আসা শুরু করবে বলে আশা করছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। তবে ঠিক কবে আসতে পারে নির্দিষ্ট করে কেউ বলতে পারেননি।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...