আলতাব হোসেন মাল্টা চাষে স্বপ্ন দেখছেন নরসিংদীতে

নরসিংদীতে মাল্টা চাষে স্বপ্ন দেখছেন আলতাব হোসেন। তিন জেলার রায়পুরা উপজেলার মরজাল ইউনিয়নের দুকুন্দির চর গ্রামের বাসিন্দা। এক বছর দুই মাস আগে লাগানো তার গাছগুলোতে এখন থোকায় থোকায় ঝুঁলছে মাল্টা। ফলন ভালো হলে লাভবান হবেন বলে আশা করছেন তিনি।

জানা যায়, আলতাফ হোসেন ২০২০ সালে মার্চ মাসের দিকে প্রথমে তার এক বন্ধুর পরামর্শে পরীক্ষামূলকভাবে নিজ উদ্যোগে এ মাল্টা চাষে মনোনিবেশ করেন। পরে একই এলাকার মরজাল নার্সারি থেকে বারি মাল্টা (১) জাতের মাল্টার চারা প্রতিটি ১০০ টাকা করে ১১০টি চারা এনে তার ১১ শতাংশ জমিতে রোপণ করেন। পাশাপাশি এ জমিতে সাথী ফসল হিসেবে মরিচ ও বেগুনের চাষও করেন।

মাল্টা চাষি আলতাব হোসেন বলেন, আমাদের দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অনেকেই এফলের চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন। আর সেই অনুপ্রেরণা থেকেই আমার মাল্টা চাষের দিকে আগ্রহ হওয়া। দেশে উৎপাদিত মাল্টা বিদেশ থেকে আমদানি করা যে কোনো মাল্টার চেয়ে রসালো, সুস্বাদু ও মিষ্টি।

তিনি আরও বলেন, ১১০টি গাছের মধ্যে মাত্র ৬টি গাছ বাদে সবকয়টি মাল্টা গাছেই ফলন আসছে। একটি মাল্টা গাছে ১০০ থেকে ১২০টি ফল ধরেছে। যা ওজনে ১৫ থেকে ২০ কেজির মতো হতে পারে। তাই তিনি ৮০ টাকায় কেজি দরে বিক্রি করতে পারলেও এবছর ১ লাখ ৮০ হাজার থেকে ২ লাখ টাকা বিক্রি করতে পারবেন বলে আশাবাদী।

রায়পুরা উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা বনি আমিন জানান, এই এলাকায় মাল্টা চাষে ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। আমরা ঐ ইউনিয়নের দুকুন্দির চর গ্রামে প্রায় ৩০-৪০টি প্রদর্শনী স্থাপনের কাজ হাতে নিয়েছি।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...