Deprecated: mysql_connect(): The mysql extension is deprecated and will be removed in the future: use mysqli or PDO instead in /home/sumon09/public_html/include/config.php on line 2
 কেশবপুরে জমে উঠেছে আখ হাট

২০ আগষ্ট ২০১৮


হোম   »   কৃষি তথ্য   »   কৃষি পণ্য  
কেশবপুরে জমে উঠেছে আখ হাট

প্রতিদিন ১২ থেকে ১৫ লাখ টাকার কাটোরা-গেন্ডারিয়া জাতীয় আখ কেনা বেচা হচ্ছে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যশোরের কেশবপুরের বাদুড়িয়া মোড় নামক স্থানে। এ স্থানটি এখন আখের হাট হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। ক্রেতা-বিক্রেতা ও চাষিদের এখানে এসে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। খাবারের জন্য হোটেল না থাকায় অনেককে যেতে হয় দূর অঞ্চলের কোন শহরের হোটেলে ।

হাট চলাকালীন সময় ভ্যান, নছিমন-করিমন, পিকআপ, ট্রাক আর হাজারো মানুষের সমাগমে জমজমাট হয়ে উঠে দড়্গিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এই আখের হাট। এক কিলোমিটার জুড়ে রাস্তার দু’ধারে জড়ো করে রাখা ও সারিবদ্ধভাবে সাজানো থাকে আখ।

বাদুড়িয়ার আখের হাট থেকে প্রতিদিন সাতক্ষীরা, খুলনা বাগেরহাট, গোপালগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, যশোর, নড়াইল, ফরিদপুর, বগুড়া, রাজশাহী ও ঢাকার যাত্রাবাড়িতে আখ চালান হয়। ভ্যান, নছিমন-করিমন, ট্রাক, পিকআপ ও আলমসাধু গাড়িতে বোঝাই করে আখ নিয়ে যায় দেশের বিভিন্ন স্থানে। প্রতিদিন তিন থেকে চার লাখ আখ উঠে এই হাটে, বিক্রিও হয়ে যায়। ২৫টি আখ দিয়ে একটি আটি বাঁধা হয়। যার মূল্য ১২৫ থেকে ১৫০ টাকা। আবার বড় ২৫টি আখ বিক্রি হয় ৫শ’ টাকায়। এছাড়াও ২০ থেকে ২৫টি আড়তের মাধ্যমেও আখ বিক্রি হয়ে থাকে। আষাঢ় থেকে কার্তিক মাস পর্যত্ম এখানে আখের কেনা বেচা হয়। এটাই মূলত আখের মৌসুম। মৌসুম শেষে এখানে আখ বিক্রি হয় না। মৌসুমী হাট হওয়া সত্ত্বেও এ হাটের খ্যাতি দেশ জুড়ে। আখ চাষ করে এলাকার শত শত কৃষক আজ অর্থনৈতিক স্বাবলম্বী হয়েছে। এলাকার বেকার যুবক যুবতীরাও আখ ড়্গেতে শ্রম বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতে পারছে।

বাগেরহাটের আখ ব্যবসায়ী মোঃ সেলিম মোড়ল দীর্ঘদিন বাদুড়িয়ার আখের হাটে এসে আখ কিনে নিয়ে যান। আখের ব্যবসায় তার লাভও ভাল হচ্ছে। এখানে থাকা-খাওয়ার কোন ব্যবস্থা না থাকায় বিড়ম্বনায় পড়তে হয় বলে জানান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান জানান, মিল বহির্ভূত এলাকা এবং মিল জোন এরিয়া না হওয়া সত্ত্বেও কেশবপুরসহ আশপাশ এলাকায় এবার ব্যাপক আখ চাষ হয়েছে। কৃষকরা এবার প্রতি হেক্টর জমিতে কমপক্ষে সাড়ে চার লাখ টাকা করে আখ বিক্রি করবে। যা গত বছরের চেয়ে এবার দ্বিগুণ লাভ করবে কৃষকরা। কৃষকরা আখ চাষে বেশি ঝুঁকে পড়েছে । কৃষকরা যাতে ব্যাংক থেকে ঋণ পেতে পারে তার জন্য ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করা হচ্ছে।
পাতাটি ৩৬৬৯ প্রদর্শিত হয়েছে।
এ সম্পর্কিত আরও সংবাদ

»  দেশের দক্ষিণাঞ্চলে লবনাক্ত জমিতে ভূট্রা চাষ

»  জয়পুরহাটে শসা চাষে স্বাবলম্বী কৃষক

»  কলাপাড়ায় তরমুজ চাষে সাফল্য

»  কেশবপুরে জমে উঠেছে আখ হাট

»  পদ্মার চরে বাদাম চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে